Search Results for:

লীলাভুমি পাথরঘাট

লীলাভুমি পাথরঘাট ৯-১০ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে বিস্তৃত। এই স্থানটি কসবা উঁচাই অথবা মহিপুর বলেও পরিচিত যেটি। এখানকার ২০০ মিটার উত্তরে একটি প্রাচীন পুকুর আছে। পালদের শাসনামলে এই লেকের উত্তরে খ্রিষ্টান মিশনারিজরা কিছু ভবন নির্মাণ করে। এখানে আসলে দেখতে পাবেন ১৮ ফুট পানির নীচে তুলশি গঙ্গা নদীর স্রোতের সাথে পাথর বয়ে নিয়ে আসা। এছাড়াও এখানে একটি […]

আর এন সাহা হাউস

নবাবগঞ্জে অবস্থিত আর এন সাহা হাউসের বর্তমান মালিক একজন স্থানীয় ব্যবসায়ী। ইছামতি নদীর ঠিক পাশেই অবস্থিত আর এন সাহা হাউস বর্তমানে মেরামতধীন। ধনী ব্যবসায়ী রাধা নাথ সাহার নামে এই ভবনটির নামকরণ করা হয়। ধারনা করা যায় যে, খুব শিগগিরই এই স্থানটিকে একটি আকর্ষণীয় পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা হবে। বর্তমানে প্রাসাদসম এই ভবনটির মালিক শ্রী […]

বর্ধন কুঠি

গাইবান্ধা জেলার অন্যতম একটি ঐতিহাসিক স্থানের নাম বর্ধন কুঠি। এই স্থানটি গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কাছে অবস্থিত। ইংরেজ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির শাসনামলে রাজা হরিনাথ বর্ধনকুঠি শাসন করেছিলেন। তবে, ভারতীয় উপমহাদেশের বিভক্তির সময় বর্ধন কুঠির সর্বশেষ শাসক রাজা শৈলেশ চন্দ্র বাংলাদেশ থেকে ভারতে পাড়ি জমান। এই স্থানে গোবিন্দগঞ্জ কলেজ প্রতিষ্ঠার ফলে শুধুমাত্র বর্ধনকুঠির অবশিষ্টাংশ আপনার চোখে পড়বে। তবে, […]

চন্দ্রমহল

চন্দ্রমহল নামে একটি ভবনকে কেন্দ্র করে রঞ্জিতপুরের কাছে একটি পিকনিক স্পট রয়েছে। সম্ভবত সৈয়দ আমানুল হুদা সেলিম নামক এক ব্যাক্তি এই ভবনটি নির্মাণ করেন এবং তাঁর স্ত্রী চন্দ্রের নামে ভবনটির নামকরণ করেন। তিনি ছিলেন নৌ বাহিনীর একজন কর্মকর্তা। প্রতিদিন অসংখ্য স্থানীয় পর্যটক এখানে আসেন। পূর্বে এখানে ঢুকতে কোন প্রবেশ মূল্য না দিতে হলেও বর্তমানে ২০/- […]

মোজাফফর গার্ডেন এন্ড রিসোর্ট

ব্যাপারটা অবাক করার মতো হলেও এই রিসোর্টটি মোজাফফর গার্ডেন এন্ড রিসোর্ট নামে খুব একটা পরিচিত না হলেও মন্টু মিয়ার বাগান বাড়ি নামেই সর্বাধিক পরিচিত। সুন্দরবন থেকে মাত্র দুই ঘণ্টার দূরত্বে সাতক্ষীরা শহরের প্রানকেন্দ্রে অবস্থিত এই রিসোর্টটি প্রায় ১০০ একর জমির উপর স্থাপিত। রিসোর্টটি বেশ খোলামেলা এবং বহু জাতের গাছপালায় পরিপূর্ণ হওয়ায় এখানে আগত অতিথিরা একদিকে […]

পুরাখালী বাওড়

যশোর জেলার অভয়নগরের শ্রীধারপুরে পুরাখালী বিলের পরেই পুরাখালী বাওড় অবস্থিত। ৭৮ একর জমির উপর এই বাওড়টির অবস্থান হলেও বর্ষাকালে বাওড়ের আয়তন বৃদ্ধি পেয়ে দাড়ায় ৯৪ হেক্টরে। এখানে ২ হেক্টর আয়তনের একটি অভয়াশ্রমে রয়েছে ২২ প্রজাতির মাছ, ১৭ প্রজাতির দেশী ও বিদেশী পাখি এবং ৯ প্রজাতির জলজ উদ্ভিদ। পুরাখালী বাওড়কে ঘিরে থাকা গ্রামগুলো হলঃ পরাবালি, মথুয়াপুর, […]

অষ্টগ্রাম হাওড়

চারপাশে পানিদ্বারা পরিবেষ্টিত একটি বিশাল জলাভূমি হল অষ্টগ্রাম হাওড় যেখানে দ্বীপের মত কয়েকটি গ্রাম রয়েছে। এখানে আসলে কিছু মাছ ধরার নৌকা এবং হাওড়ে অবস্থিত গ্রামগুলোই আপনার চোখে পরবে। বর্ষাকাল এখানে বেড়াতে আসার সবচেয়ে ভাল সময়। কিশোরগঞ্জের ছয়টি উপজেলাজুড়ে রয়েছে একটি বিশাল হাওড়। অষ্টগ্রাম হাওড় নেত্রকোনা, হবিগঞ্জ এবং সুনামগঞ্জ জেলার হাওড়গুলোর সাথে সংযুক্ত হয়েছে। বর্ষাকালে কোন […]

এসি কিংবা পাখা নয়, দখিনা হাওয়াই যথেষ্ট

কটেজগুলো দেখতে ঠিক কুঁড়ে ঘরের মতো। একদিকে বিশাল খোলা মাঠ অন্যদিকে পুকুর। পুকুরের উপর ঝুলন্ত বারান্দায় ছুঁই ছুঁই করছে পানি। বারান্দায় পাতা রয়েছে চেয়ার-টেবিল। মন কাড়ে কক্ষের ইন্টেরিয়রও। রুচিশীল সব আধুনিক ফার্নিচারের সমাহার। ভেতরে শোভা পাচ্ছে পাতাবাহারও। কাচে ঘেরা খোলা জানালা, সরালেই দখিনা মৃদুমন্দ হাওয়া। সকাল সন্ধ্যায় পাখির কলকাকলী, রাতে শেয়ালের ডাক। জানালার কাছে ঝিকিমিকি […]

কথা বলুন

এই মুহূর্তে অনলাইনে না থাকায় আমরা দুঃখিত! কিন্তু আপনি আমাদের ই-মেইল পাঠাতে পারেন। আমরা ২৪ ঘন্টার মধ্যে আপনার প্রশ্নের উত্তর দেব।

আপনার প্রশ্ন বা সমস্যার সহযোগিতা করায় আমরা সর্বদা তৎপর!

ENTER ক্লিক করুন