নারায়ণগঞ্জ জেলা

তথ্য

Description

বিকন লাল পাণ্ডের নামানুসারে নারায়ণগঞ্জ জেলার নামকরণ করা হয় যিনি বেনুর ঠাকুর অথবা লক্ষ্মী নারায়ন ঠাকুর নামে পরিচিত ছিলেন। ১৭৬৬ সালে পলাশীর যুদ্ধের পর পাণ্ডে এই এলাকাটি ইংরেজ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির কাছ থেকে লীজ নিয়েছিলেন। ১৮৬৬ সালে নারায়ণগঞ্জ ডাকঘর প্রতিষ্ঠা করা হয় এবং ১৮৭৬ সালের ৮ই ফেব্রুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিষ্ঠা করা হয় নারায়ণগঞ্জ মিউনিসিপালিটি। ১৮৭৭ সালে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের মধ্যে টেলিগ্রাফ যোগাযোগ স্থাপন করা হয় এবং ১৮৮২ সালে ব্যাংক অফ বেঙ্গল টেলিফোন চালু করে। ১৯৮৪ সালের ১৫ই ফেব্রুয়ারি জেলা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পূর্বে নারায়ণগঞ্জ ছিল ঢাকার একটি উপজেলা। পর্তুগীজ এবং ইংরেজদের আগমনের কারনে সতেরশো এবং আঠারোশ শতকে এই জেলার গুরুত্ব বৃদ্ধি পায়। শীতালক্ষ নদীর পশ্চিম তীরে এই জেলায় সর্বপ্রথম উন্নত হয়। উনিশ শতকে নারায়ণগঞ্জের গুরুত্ব বহুগুনে বৃদ্ধি পায় যখন ১৮৩০ সালে র‍্যালি সহোদরেরা আসামের একটি কোম্পানির সহায়তায় পশ্চিমা বিশ্বে পাট রফতানির জন্য এখানে একটি কোম্পানি স্থাপন করে। ১৯০৮ সালের মধ্যে ১৮টি ইউরোপিয়ান কোম্পানি এবং ২টি ভারতীয় কোম্পানি কলকাতা থেকে নারায়ণগঞ্জে প্রক্রিয়ার জন্য পাটের ব্যবসা আরম্ভ করে। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তানের সৃষ্টির পর নারায়ণগঞ্জের অর্থনীতি প্রক্রিয়াজাতকরনসহ পাট ব্যবসার উপর নির্ভরশীল হয়।

Where to stay

নারায়ণগঞ্জে থাকার জন্য বিভিন্ন হোটেল ও রেস্টুরেন্টের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলঃ 1. সোনারগাঁও রয়েল রিসোর্ট ঠিকানাঃ ঈশাপাড়া, দীঘিরপাড় সড়ক, সোনারগাঁও সড়ক, সোনারগাঁও নারায়ণগঞ্জ। ফোনঃ ০১৭৭৬৪১৪০১৫

How to go

ঢাকা থেকে ২৮ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত নারায়ণগঞ্জে সড়কপথে যেতে প্রায় ৫০ মিনিট সময় লাগে। আকাশপথে ঢাকা থেকে নারায়ণগঞ্জের দূরত্ব ১৩.৭১ কিলোমিটার অর্থাৎ ৮.৫২ মাইল এবং নদীপথে এই দূরত্ব ৭.৪ নটিক্যাল মাইল। ঢাকা থেকে নারায়ণগঞ্জের এই দূরত্ব আপনাকে পরিকল্পনা করতে সহায়তা করবে। তবে, এই জেলায় পৌছাতে দূরত্ব এবং সময়সীমা বিভিন্ন নির্মাণাধীন প্রকল্প, রাস্তার জ্যাম, আবহাওয়া এবং অন্যান্য কারনে ভিন্ন হতে পারে তাই আপনাকে সেই অনুযায়ী পরিকল্পনা করতে হবে। আপনার পথের চলা নির্ধারণ করতে অবশ্যই সব ধরনের চিহ্ন এবং নোটিশ মেনে চলুন।

ঢাকা থেকে নারায়ণগঞ্জে চলাচলকারী বাসগুলোর মধ্যে রয়েছেঃ
১। বন্ধন (মতিঝিল থেকে সরাসরি নারায়ণগঞ্জে উভয় পথে চলাচল করে)
২। একতা (গুলিস্তান থেকে সরাসরি নারায়ণগঞ্জের শিব মার্কেট পর্যন্ত উভয় পথে চলাচল করে)
৩। উল্লাস (গুলিস্তান থেকে সরাসরি নারায়ণগঞ্জ পর্যন্ত উভয় পথে চলাচল করে)
৪। মৈত্রী (মোহাম্মদপুর থেকে নারায়ণগঞ্জ পর্যন্ত চলাচল করে)

ভ্রমন প্যাকেজ

কথা বলুন

এই মুহূর্তে অনলাইনে না থাকায় আমরা দুঃখিত! কিন্তু আপনি আমাদের ই-মেইল পাঠাতে পারেন। আমরা ২৪ ঘন্টার মধ্যে আপনার প্রশ্নের উত্তর দেব।

আপনার প্রশ্ন বা সমস্যার সহযোগিতা করায় আমরা সর্বদা তৎপর!

ENTER ক্লিক করুন