সাভার উপজেলা

তথ্য

Description

কারো কারো মতে ইতিহাস খ্যাত পাল বংশীয় রাজা হরিশচন্দ্রের সর্বেশ্বর রাজ্যের রাজধানীর নাম ছিল সম্ভার এবং সম্ভার নাম থেকেই সাভার নামের উৎপত্তি। সাভার অতি প্রাচীন স্থলভূমি। ঢাকার ইতিহাসে দেখা যায় ধলেশ্বরী এবং বংশী নদীর সঙ্গম স্থলে বংশী নদীর পূর্বতটে ঢাকা থেকে ১৩ মাইল বায়ু কোনে অবস্থিত সাভার। খৃষ্টীয় অষ্টম শতাব্দি পর্যমত্ম এই স্থানে সম্ভাগ বা সম্ভাস প্রদেশের রাজধানি ছিল। ধামরাইর উত্তর পশ্চিম কোনে সম্ভাগ নামে যে ক্ষুদ্র পলস্নী আছে তা আজো সম্ভাগ প্রদেশের অতীত স্মৃতি বহন করে। বৌদ্ধ নৃপতিগনের শাসনাধীনে প্রাচীন সম্ভাগ ও তার বিপুল বৈভাব ও প্রতাপে পরিপুর্ণ ছিল। যহেতু বৌদ্ধ আমলের অসংখ্য বৌদ্ধ ধংশ স্ত্তপ ও বৌদ্ধ মুর্তি সাভার এলাকার মাটির নিচে আবিস্কৃত হয়েছে এবং আজও হচ্ছে সেহেতু ধরে নেয়া যায় যে বৌদ্ধ শাসনামলে এই শহর গড়ে উঠেছিল। গৌতমবুদ্ধ অথবা মৌয্য বংশের শ্রেষ্ঠ সম্রাট আশোকের সময়ও যদি এই রাজ্যের পত্তন হয়ে থাকে তবুও আজকের সাভারের বয়ষ দুই হাজার দুইশত বছরের অধিক। হরিশচন্দ্র পালই রাজা হরিশচন্দ্র নামে সাভারের সিংহাসনে আরোহন করেন রাজা হরিশ চন্দ্রের রাজবাড়ী সাভারের পূর্বপাশে রাজাশন গ্রামে অবহেলিত এক কোনে মাটির নিচে চাপা পরে আছে। রাজাশনের আশপাশে লুপ্তপ্রায় বহু দীঘি, বৌদ্ধ স্থাপত্যের নিদর্শন রাজোদ্যান,খাল পরিখা,আজও কালের শাক্ষি গনেবিরাজমান। রাজার সেনানিবাসে কোঠাবাড়ী সাভারের উত্তর পাশে অবস্থিত। রাজা হরিশচন্দের এক রানী কর্ণবতীর নামে কর্ণপাড়া অপর মহিষী ফুলেশ্বরীর নামে রাজফুলবাড়ীয়া সাভারের দক্ষিনে এক মাইল অমত্মর অবস্থিত। সাভার বা সম্ভার নামের পূর্ব কথন বলে অনেক ঐতিহাসিক এই মতের সমর্থন করেন । ময়নামতির তান্ত্রিক মহারানীর পুত্র গোপীনাথের সঙ্গে হরিশচন্দ্র রাজার জেষ্ঠা কন্যা অনুদার রিয়ে এবং কনিষ্ঠ কন্যা পদুনাকে যৌতুক প্রদানের গল্প কাহিনী সাভারের অনেকের কাছেই শোনা যায়। শিবচন্দ্রের একাদশ পুরম্নশ তরম্নরাজ খাং প্রথম দ্বীতিয় পুত্র শুভরাজ ও যুবরাজ হুগলীতে চলে যান । তৃতীয় ও চতুর্থ পুত্র বুদ্ধিমমত্ম ও ভাগ্যমমত্ম পবিত্র ইসলাম ধর্ম গ্রহন করেন । তাদের এক বংশধর সিদ্ধ পুরম্নষ খ্যাতি লাভ করেন এবং তার সমাধী কোন্ডা গ্রামের খন্দকার দরাজ নামে আজও বিদ্যমান। সাভার এলাকা থেকে কিছিুটা উত্তরে নবীনগর । নবীনগরের পশ্চিমে বংশাই নদী । এখন ক্ষীনধারায় প্রবাহিত। এই নদীর পশ্চিম তীরে ধামরাই। ঐ কালেই মিসর মেসোপটেমিয়া (বর্তমান ইরাক) এবং উপমহাদেশের পশ্চিমাঞ্চলে সিন্ধু নদের অববাহিকায় কৃষি সভ্যতার সূচনা হয় । এই দুই অঞ্চলের মধ্যে চলতো অবাধ বাণিজ্য। গ্রীক ঐতিহাসিকদের বিবরণীতে জানা যায় সাবাহর ব্যবাসায়ীরা চীন জাপান এবং কোরীয়ার সঙ্গে ব্যবসা করতো। সেই সময় আজকের সাভার সমুদ্রপর্ববর্তী নগর।

Where to stay

How to go

ভ্রমন প্যাকেজ

কথা বলুন

এই মুহূর্তে অনলাইনে না থাকায় আমরা দুঃখিত! কিন্তু আপনি আমাদের ই-মেইল পাঠাতে পারেন। আমরা ২৪ ঘন্টার মধ্যে আপনার প্রশ্নের উত্তর দেব।

আপনার প্রশ্ন বা সমস্যার সহযোগিতা করায় আমরা সর্বদা তৎপর!

ENTER ক্লিক করুন