রায়েরবাজার বধ্যভূমি

ধরন: স্মৃতিস্তম্ভ
সহযোগিতায়: Nayeem
Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

বিস্তারিত

বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার অন্যতম ঐতিহাসিক এলাকা হল রায়েরবাজার। সম্ভবত ১৯শ শতকে ঔপনিবেশিক শাসনামলে এই এলাকাটিকে বসবাসযোগ্য করে গড়ে তোলা হয়। তুরাগ নদীর পাশেই অবস্থিত এই এলাকায় মাটির সহজলভ্যতা এবং নদীপথে মাটির তৈরি পণ্য পরিবহনের সুবিধার কারনে এখানে সর্বপ্রথম কুমোররা বাস করতে শুরু করে। সম্ভবত রায় নামক কোন ব্যাক্তির নামে এই এলাকার নামকরণ করা হয়েছিল।

মুঘল আমলে রায়েরবাজার খ্যাতি ছিল মৃৎশিল্পের জন্য। এই অঞ্চলে নামকরা ‘লালমাটির’ সহজলভ্যতার কারনে বেশীরভাগ কুমোররা এখানে বাস করত। মুঘল এবং ইংরেজ শাসনামলে এই এলাকার আশেপাশে লালমাটি পাওয়া যেতো না। রায়েরবাজারের কুমোরদের লালমাটি দিয়ে কাজ করার সুদীর্ঘ ঐতিহ্য ছিল। ইতিহাসবিদ ডঃ ওয়াইজের মতে মুঘল আমলে রায়েরবাজারের নাম ছিল ‘কুমারতলী’।

আমাদের স্মৃতিতে এবং ইতিহাস রায়েরবাজারের নাম লেখা থাকবে আরেকটি কারনে। ১৯৭১ সালের ১৪ই ডিসেম্বরের কালরাতে ঢাকায় শিক্ষক, সাংবাদিক, চিকিৎসক, শিল্পী, প্রকৌশলী, লেখকসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন পেশার বুদ্ধিজীবিদের চোখ বেধে ঘর থেকে তুলে মিরপুর, মোহাম্মদপুর, নাখালপাড়া, রাজারবাগসহ শহরের বিভিন্ন নির্যাতন কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। পরবর্তীতে অকথ্য নির্যাতনের পর তাঁদের নৃশংসভাবে হত্যা করা হয় এবং রায়েরবাজার বধ্যভূমিতে এসব কৃতি সন্তানের লাশ ফেলে দেওয়া হয়। সেই কালরাতে পাকবাহিনীকে তাদের এদেশীয় দোসর ‘আল বদর’ ও ‘আল শামস’ এসব বুদ্ধিজীবিদের খুঁজে পেতে সহায়তা করে। দেশ স্বাধীন হবার পর রায়েরবাজারের বধ্যভূমি আবিষ্কৃত হয় যেখানে দেশের এসব প্রথিতযশা বুদ্ধিজীবির পচা গলা লাশ ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে থাকতে দেখা যায়। ১৯৭১ সালের শহীদ বুদ্ধিজীবিদের স্মরণে রায়েরবাজারের বধ্যভূমিতে একটি স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করা হয়েছে।


কিভাবে যাবেন

কিভাবে পৌঁছাবেন: ঢাকা শহর

কোথায় থাকবেন

কি করবেন

এই স্থানটির ঐতিহাসিক গুরুত্ব সম্পর্কে উপলব্ধি করুন।

খাবার সুবিধা

ঢাকা শহরে কোথায় খাবেন, সে পেইজটি দেখুন। দেখতে ক্লিক করুন 

মানচিত্র

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কথা বলুন

এই মুহূর্তে অনলাইনে না থাকায় আমরা দুঃখিত! কিন্তু আপনি আমাদের ই-মেইল পাঠাতে পারেন। আমরা ২৪ ঘন্টার মধ্যে আপনার প্রশ্নের উত্তর দেব।

আপনার প্রশ্ন বা সমস্যার সহযোগিতা করায় আমরা সর্বদা তৎপর!

ENTER ক্লিক করুন