রোজ গার্ডেন প্যালেস

ধরন: প্রাসাদ
সহযোগিতায়: Nayeem
Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

বিস্তারিত

১৯ শতকের শেষের দিকে হিন্দু জমিদার হৃষিকেস দাস রোজ গার্ডেন প্যালেসটি নির্মাণ করেন। সেসময়, বলধা গার্ডেনে অনুষ্ঠিত হওয়া জলসাগুলো শহরের বিত্তবান হিন্দুদের সামাজিক জীবনের গুরুত্বপূর্ণ অংশ ছিল। বলধা গার্ডেনের এমনই এক জলসায় হৃষিকেস দাস নামক এক নিম্নবর্ণের জমিদারকে অপমান করা হয় এবং এর ফলে তিনি নিজেই বাগানবাড়ি স্থাপনের সিদ্ধান্ত গ্রহন করেন। হৃষিকেস দাস তাঁর নিজস্ব বাগানবাড়িতে জলসার আয়োজন করতেন। তাঁর বাগানের মূল আকর্ষণ ছিল একটি নয়নাভিরাম সাজঘর। তবে বাগানবাড়িটি শুধুমাত্র বিনোদনের জন্য তৈরি করা হয়েছিল (যদিও পরবর্তী মালিকরা এটি বসবাসের জন্যেও ব্যবহার করতেন)। বিলাসবহুল জীবনযাপনের কারনে হৃষিকেস দাস দেউলিয়া হয়ে যান এবং ফলশ্রুতিতে তাঁকে তাঁর সম্পত্তি বিক্রি করে দিতে হয়েছিল।

১৯৩৬ সালে খান বাহাদুর কাজী আব্দুর রশিদ এই প্রাসাদটি হৃষিকেস দাসের কাছ থেকে কিনে নেন এবং প্রাসাদটির নামকরণ করেন রশিদ মঞ্জিল। তাঁর বড় ছেলে কাজী মোহাম্মদ বশির (হুমায়ুন) আজ অবধি তাঁদের নাম ও খ্যাতিকে ধরে রেখেছেন।

আজ অবধি ব্যাক্তিগত সম্পত্তি এই ভবনটির মূল আবেদন ধরে রেখে ভবনটিকে রক্ষনাবেক্ষন করা হচ্ছে। বর্তমানে এই প্রাসাদটির মালিক ব্যারিস্টার কাজী আব্দুর রকিব প্রাসাদটি বেঙ্গল মোশন পিকচার স্টুডিও লিমিটেডের কাছে ভাড়া দিয়েছেন।

প্রাসাদটির নীচতলায় একটি হলরুম ছাড়াও করিনথিয়ান কলাম এবং আটটি কক্ষ রয়েছে। প্রাসাদের উপর তলার মাঝে নৃত্য করার জন্য হল ছাড়াও আরও পাঁচটি কক্ষ রয়েছে। প্রাসাদের সামনে একটি ঝর্ণা ছিল যেটির চিহ্ন আজও বিদ্যমান। প্রাসাদের বাগানে কয়েকটি মার্বেলের তৈরি মূর্তি রয়েছে যদিও স্থানটির নামকরণ যে গোলাপ বাগানের জন্য করা হয়েছে সেই গোলাপ বাগানটি এখন আর নেই।

প্রাসাদের পিছনে পূর্বদিকে একটি বারান্দা আছে যেখানে প্রবেশের জন্য ধনুকাকৃতির তিনস্তর বিশিষ্ট একটি প্রবেশপথ রয়েছে যেটি দিয়ে উপরে ওঠার সিঁড়িতে যাওয়া যায়।


কিভাবে যাবেন

কিভাবে পৌঁছাবেন: ঢাকা শহর

কোথায় থাকবেন

কি করবেন

১। ছবি তুলতে পারেন।
২। রাজপ্রাসাদের ইতিহাস সম্পর্কে জানতে পারেন।

খাবার সুবিধা

এখানকার আশেপাশে খাওয়ার জন্য বেশকিছু রেস্টুরেন্ট রয়েছে যেমনঃ
১। চন্দ্র-তারা হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট।
২। জিলানী হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট।
৩। ৪ স্টার চাইনিজ।
৪। গ্রামীণ স্বাদ সুইট এন্ড বেকারী।

মানচিত্র

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো দেখুন

  • This one is situated at Shamibag area. The exact location is at the K.M Das Lane of Tikutuli. It will only take 15 taka rickshaw fair from Motijheel area.

অন্যদের ওয়েবসাইট থেকে

  • From Tripadvisor.com

  • শ্বেত পাথরের মূর্তি, কৃত্রিম ফোয়ারা, ঝর্ণা, শান বাঁধানো পুকুর ও অনন্য স্থাপত্য শৈলিতে নির্মিত ভাস্কর্য– এক রাজকীয় বাগানবাড়ি ‘রোজ গার্ডেন’। বাংলাদেশের জন্মের ইতিহাসের সঙ্গে যা চিরদিনের মত যুক্ত হয়ে গেছে।

কথা বলুন

এই মুহূর্তে অনলাইনে না থাকায় আমরা দুঃখিত! কিন্তু আপনি আমাদের ই-মেইল পাঠাতে পারেন। আমরা ২৪ ঘন্টার মধ্যে আপনার প্রশ্নের উত্তর দেব।

আপনার প্রশ্ন বা সমস্যার সহযোগিতা করায় আমরা সর্বদা তৎপর!

ENTER ক্লিক করুন