কক্সবাজার রাডার স্টেশন

ধরন: মিনার
সহযোগিতায়: Nayeem
Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

বিস্তারিত

বৈদেশিক উন্নয়ন চুক্তির আওতায় জাপানের সহায়তায় কক্সবাজারে একটি নবনির্মিত রাডার স্টেশন রয়েছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগপ্রবন হওয়ায় বাংলাদেশকে বলা হয়ে থাকে প্রাকৃতিক দুর্যোগের দেশ। এদেশের প্রাকৃতিক দুর্যোগগুলোর মধ্যে রয়েছেঃ বন্যা, ঝড়, ঘূর্ণিঝড়, খরা, বর্ষার আগে ও পরের মঙ্গা ইত্যাদি। যেহেতু প্রাকৃতিক দুর্যোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব নয় তাই রাডার স্টেশনের পূর্বাভাসের মাধ্যমে দুর্যোগ পরবর্তী ক্ষয়ক্ষতি কমানো সম্ভব।

১৯৮৭ সাল থেকে জাপান এদেশে বন্যা, ঘূর্ণিঝড়ের সময় দুর্যোগ মোকাবেলায় সাহায্য প্রদানের পাশাপাশি দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় প্রশাসনিক দক্ষতা বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে চলেছে। ১৯৮৭ সালে এরই অংশ হিসেবে জাপান কক্সবাজার ও খেপুপাড়ায় অবস্থিত দুটি রাডারকে অত্যাধুনিক এস-ব্যাণ্ড রাডারের মাধ্যমে প্রতিস্থাপিত করে। ২০০৪ সালে দুটি রাডারই অকেজো হয়ে পরায় বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদফতরের পক্ষে সমুদ্রে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় শনাক্ত করা অসম্ভব হয়ে পড়ে। নতুন প্রকল্পের আওতায় এই দুটি গুরুত্বপূর্ণ স্থানে নতুন রাডার স্টেশন স্থাপনের লক্ষ্যে জাইকাকে প্রাথমিক নকশা প্রণয়নের দায়িত্ব প্রদান করা হয়।

প্রকল্পের অংশ বিশেষঃ
১। কক্সবাজার ও খেপুপাড়া রাডার স্টেশনে পুরাতন রাডারগুলো প্রতিস্থাপন করা।
২। কক্সবাজার ও খেপুপাড়ার রাডার স্টেশন থেকে ঢাকার ঘূর্ণিঝড় সতর্কীকরণ কেন্দ্রে স্যাটেলাইট যোগাযোগ ব্যবস্থা প্রণয়ন করা।
৩। বর্তমানে অবস্থিত মাইক্রোওয়েভ লিঙ্কের জন্য খুচরা যন্ত্রাংশ সরবরাহ করা।
৪। কক্সবাজার ও খেপুপাড়ায় রাডার টাওয়ার ভবন নির্মাণ করা।

প্রত্যাশিত ফলাফলঃ
১। বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদফতর ঘূর্ণিঝড় সম্পর্কিত তথ্য এবং সতর্ক বার্তা দুর্যোগ মোকাবেলায় কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়ার স্বার্থে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ব্যুরো, মিডিয়া এবং অন্যান্য সংশ্লিষ্ট দফতরসমূহকে জানাতে পারবে।
২। আবহাওয়া বিষয়ক স্যাটেলাইটের তথ্য এবং নবনির্মিত রাডার ব্যবস্থার মাধ্যমে প্রাপ্ত তথ্যের সমন্বয়ে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদফতরের ঘূর্ণিঝড় এবং আবহাওয়া পর্যবেক্ষণের সক্ষমতা শক্তিশালী হবে।
৩। কক্সবাজার জেলার বিমানবন্দর, এবং মাছ ধরা ট্রলার ও নৌকাকে তাৎক্ষনিক সতর্ক সংকেত জারির ক্ষেত্রে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদফতরের পূর্বাভাস প্রদানের সক্ষমতা বহুগুনে বৃদ্ধি পাবে।

কক্সবাজার রাডার স্টেশন


কিভাবে যাবেন

কিভাবে পৌঁছাবেন: কক্সবাজার জেলা

চট্রগ্রাম বিভাগের এগারোটি জেলার অন্যতম বঙ্গোপসাগরের তীরে অবস্থিত কক্সবাজার জেলার উত্তরে রয়েছে চট্রগ্রাম জেলা, পূর্বে মায়ানমার ও বান্দরবান, এবং দক্ষিন ও পশ্চিমে রয়েছে বঙ্গোপসাগর।

ঢাকা ও কক্সবাজারের মধ্যে সড়কপথে যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে। তাই বাসে করে আপনি ঢাকা থেকে কক্সবাজারে পৌছাতে পারবেন। আপনার সুবিধার্থে ঢাকা ও কক্সবাজারের মধ্যে চলাচলকারী বাসগুলো সম্পর্কে নিম্নে তথ্য প্রদান করা হলোঃ
১। গ্রিন লাইন, যোগাযোগঃ ০৩৪১-৬২৫৩৩
২। হানিফ এন্টারপ্রাইজ, যোগাযোগঃ ০৩৪১-৬৪১৭০
৩। শ্যামলী পরিবহন, যোগাযোগঃ ০৪৪৩৪৪৯৯৩৪
৪। সোহাগ পরিবহন, যোগাযোগঃ ০৩৪১-৬৪৩৬১
৫। এস আলম পরিবহন, যোগাযোগঃ ০৩৪১-৬২৯০২
৬। শাহ বাহাদুর, যোগাযোগঃ ০১৬৭৮০৬৪৮৮০
৭। সেইণ্ট মারটিন্স, যোগাযোগঃ ০১৭২৬৫২০০৯৫
বাস ভাড়াঃ
শীতাতপ নিয়ন্ত্রিতঃ ১৫০০/- টাকা
নন এসিঃ ৭০০/- টাকা

ঢাকা এবং কক্সবাজারের মধ্যে আকাশপথে যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে। ঢাকা ও কক্সবাজারের মধ্যে ফ্লাইট পরিচালনাকারী কয়েকটি বিমান সংস্থা সম্পর্কে আপনার সুবিধার্থে নিম্নে তথ্য প্রদান করা হলোঃ
১। ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ
যোগাযোগঃ ০৯৬০৬৪৪৫৫৬৬, এক্সটেনশনঃ ৫৪২-৪৮
ভাড়াঃ ৫৯২৫/- টাকা থেকে আরম্ভ
২। নভো এয়ার
যোগাযোগঃ ০৯৬৬৬৭২২২২৪, ০২৯৮৭১৮৯১-২
ভাড়াঃ ৬৬০০/- টাকা থেকে আরম্ভ
৩। রিজেণ্ট এয়ারওয়েজ
যোগাযোগঃ ০২৮৯৫৩০০৩ অথবা ১৬২৩৮
ভাড়াঃ ৫৮০০/- টাকা থেকে আরম্ভ

কোথায় থাকবেন

কক্সবাজারে থাকার ব্যবস্থা খুবই উন্নত। এখানে পাঁচ তারকা মানের বেশ কয়েকটি হোটেলসহ সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন মানের প্রচুর হোটেল, মোটেল ও গেস্ট হাউজ রয়েছে। আপনার সুবিধার্থে কক্সবাজারের হোটেল ও গেস্টহাউজগুলো সম্পর্কে নিম্নে তথ্য প্রদান করা হলোঃ
১। হোটেল সীগাল
হোটেল মোটেল জোন
কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত, কক্সবাজার
ফোনঃ +৮৮-০৩৪১-৬২৪৮০-৯০
মোবাইলঃ +৮৮০১৭৬৬৬৬৬৫৩০, +৮৮০১৭৬৬৬৬৬৫৩

২। হোটেল সী প্যালেস
কলাতলি রোড, কক্সবাজার
ফোনঃ +৮৮-০৩৪১-৬৩৬৯২, ৬৩৭৯২, ৬৩৭৯৪, ৬৩৮২৬, ৬৩৮৫৩
মোবাইলঃ +৮৮-০১৭১৪৬৫২২২৭-৮, ০১৯৭৯৪০৫০৫১-২

৩।সেইণ্ট মারটিন রিসোর্ট
প্লটঃ ১০, ব্লকঃ এ, কলাতলি রোড, কক্সবাজার, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮-০৩৪১-৬২৮৬২, ৬৪২৭৫

৪। হোটেল সায়মন
হোটেল সায়মন রোড, কক্সবাজার
মোবাইলঃ +৮৮-০১৭১১-০২২৮৮
ফোনঃ +৮৮-০৩৪১-৬৩৯০০-৪, ৬৩৭০৩-৭

৫। হোটেল সী ক্রাউন
মেরিন ড্রাইভ, কলাতলি, নিউ বীচ
মোবাইলঃ +৮৮-০১৮১৭০৮৯৪২০
ফোনঃ +৮৮-০৩৪১-৬৪৭৯৫, ৬৪৪৭৪

খাবার সুবিধা

মানচিত্র

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো দেখুন

অন্যদের ওয়েবসাইট থেকে

কথা বলুন

এই মুহূর্তে অনলাইনে না থাকায় আমরা দুঃখিত! কিন্তু আপনি আমাদের ই-মেইল পাঠাতে পারেন। আমরা ২৪ ঘন্টার মধ্যে আপনার প্রশ্নের উত্তর দেব।

আপনার প্রশ্ন বা সমস্যার সহযোগিতা করায় আমরা সর্বদা তৎপর!

ENTER ক্লিক করুন