গুটিয়া মসজিদ

ধরন: মসজিদ / ঈদগাহ
সহযোগিতায়: Nayeem
Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

বিস্তারিত

ইউরোপ, এশিয়া এবং মধ্য প্রাচ্যের নামকরা মসজিদগুলোর নকশা অনুকরনের প্রায় ২১ কোটি টাকা ব্যয় করে বরিশাল থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে উজিরপুরে ১৬ ডিসেম্বর ২০০৩ তারিখে এই মসজিদটি নির্মাণ করেন জনাব শরফুদ্দিন আহমেদ সানটু। নয়নাভিরাম এই মসজিদটিতে ব্যাবহার করা হয়েছে উন্নমানের কাঁচ, ফ্রেম, এবং বোস স্পিকার, যেটির কারনে এই মসজিদের আজান বিশেষভাবে শ্রুতিমধুর হয়েছে। মসজিদটির বিশাল সীমানার মধ্যে আরও আছে মাদ্রাসা, ঈদগাহ, পুকুর এবং বাগান। এই মসজিদটির তত্ত্বাবধানে ৩০ জন কর্মচারী নিয়োজিত আছেন। মহিলাদের নামাজ আদায়ের জন্য আলাদা ব্যাবস্থা রয়েছে মসজিদটিতে।


কিভাবে যাবেন

বরিশাল শহর থেকে বাস, ইজি বাইক, টেম্পো অথবা রিকশায় আপনি সহজেই গুটিয়া মসজিদে পৌঁছে যাবেন।

কিভাবে পৌঁছাবেন: বরিশাল জেলা

বরিশাল জেলাটি বাংলাদেশের দক্ষিনে অবস্থিত। ঢাকার সাথে বরিশালের সড়কপথে, নদীপথে এবং আকাশ পথে যোগাযোগের ব্যবস্থা আছে।

ঢাকা থেকে বরিশালে সড়কপথে আপনি ৬ থেকে ৮ ঘণ্টায় পৌঁছে যাবেন। প্রতিদিন ভোর ৬ টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত গাবতলি বাস টার্মিনাল থেকে বেশকিছু বাস বরিশালের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। বেশীরভাগ বাস পাটুরিয়া ঘাট অতিক্রম করে বরিশালে যায় আবার কিছু কিছু বাস মাওয়া ঘাট অতিক্রম করে বরিশালে যায়। ঢাকা থেকে আগত বাসগুলো বরিশালের নখুলাবাদ বাস স্ট্যান্ডে থেমে থাকে।
ঢাকা থেকে বরিশালে চলাচলকারী বাসগুলোর মধ্যে আছেঃ
শাকুরা পরিবহন, ফোনঃ ০১১৯০৬৫৮৭৭২, ০১৭২৯৫৫৬৬৭৭
ঈগল পরিবহন, ফোনঃ ০২-৯০০৬৭০০
হানিফ পরিবহন, ফোনঃ ০১৭১৩০৪৯৫৫৯
ভাড়াঃ
এসি বাসের ভাড়াঃ ৭০০/- টাকা
নন এসি বাসের ভাড়াঃ ৫০০/- টাকা
লোকাল বাসের ভাড়াঃ ২৫০ টাকা থেকে ৩০০/- টাকা।

ঢাকা থেকে বরিশালে যাওয়ার জন্য লঞ্চ হল সবচেয়ে আরামদায়ক এবং নিরাপদ মাধ্যম। ঢাকার সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল থেকে বেশ কিছু লঞ্চ প্রতিদিন বরিশালের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। আপনার সুবিধার্থে লঞ্চ সম্পর্কিত কিছু তথ্য নিম্নে প্রদান করা হলঃ
লঞ্চের নামঃ সুরভি, সুন্দরবন, কীর্তনখোলা, কালাম খান ইত্যাদি।
এই লঞ্চগুলো রাত ৮ টায় সদরঘাট ছেড়ে যায় এবং ৮ থেকে ১০ ঘণ্টায় বরিশালে পৌঁছে যায়।
ভাড়াঃ
সিঙ্গেল কেবিনঃ ৮৫০/- টাকা।
ডবল কেবিনঃ ১৬০০/- টাকা।
ডেকে ভ্রমন করলে খরচ পরবে ২৫০/- টাকা।

বরিশালের সাথে রাজধানী ঢাকার রয়েছে আকাশপথে যোগাযোগ। বর্তমানে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ, রিজেনট এয়ারওয়েজসহ বেশ কিছু সংস্থা ঢাকা ও বরিশালের মধ্যে দ্বিমুখী ফ্লাইট পরিচালনা করছে।

কোথায় থাকবেন

বরিশালে থাকার জন্য বেশকিছু হোটেল রয়েছে। কিছু হোটেলের তথ্য আপনার সুবিধার্থে নিম্নে প্রদান করা হলঃ

হোটেল প্যারাডাইজ টু ইন্টারন্যাশনাল, ফোনঃ +৮৮-০১৭১৭০৭২৬৮৬, +৮৮-০১৭২৪৮৫৩৫৯০
হোটেল গ্র্যান্ড প্লাজা, ফোনঃ +৮৮-০১৭১১৩৫৭৩১৮, +৮৮-০১৯১৭৪৫৮০৮৮
হোটেল এথেনা ইন্টারন্যাশনাল, ফোনঃ +৮৮-০৪৩১-৬৫১০৯, +৮৮-০৪৩১-৬৫২৩৩
হোটেল হক ইন্টারন্যাশনাল, ফোনঃ +৮৮-০১৭১৮৫৮৭৬৯৮

কি করবেন

মসজিদটি ঘুরে দেখা ছাড়াও মসজিদ কম্পাউনডে  মনোরম প্রাকৃতিক পরিবেশে আপনি চমৎকার সময় কাটাতে পারেন কেননা এখানে আছে ফুল ও ফলের বাগান, পার্ক, পুকুর ও খাল ইত্যাদি।

খাবার সুবিধা

সামুদ্রিক খাবারের জন্য বরিশালের খ্যাতি আছে। এছাড়াও, এখানকার রেস্টুরেন্টগুলোতে আপনি দেশী ও স্থানীয় খাবারও পেয়ে যাবেন।

মানচিত্র

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো দেখুন

  • It was the day-3 of our four days tour and we have hired a rented car for three days. The daylight has gone when we were at the Barisal town (বরিশাল টাউন). That car has served us well for these three days. Just one last service needed, and it was the Guthia Mosque (গুঠিয়া মসজিদ). This mosque is at it's best during the night. This mosque is a bit far from the town. So after confirming our rooms from the Hotel Athena, we have started moving again.

কথা বলুন

এই মুহূর্তে অনলাইনে না থাকায় আমরা দুঃখিত! কিন্তু আপনি আমাদের ই-মেইল পাঠাতে পারেন। আমরা ২৪ ঘন্টার মধ্যে আপনার প্রশ্নের উত্তর দেব।

আপনার প্রশ্ন বা সমস্যার সহযোগিতা করায় আমরা সর্বদা তৎপর!

ENTER ক্লিক করুন