Nava Ratna Temple

ধরন: মন্দির
সহযোগিতায়:
Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

বিস্তারিত

The 300-year old Teota Zamindar Palace (তেওতা জমিদার বাড়ী) at the village Teota under Shibalaya Upazila in Manikganj District still stands with pride & dignity becoming a living testimony to the history of that time. Travelers and explorers can’t resist the temptation of having a look at the captivating old palace when they pass through the area. There is a temple just adjacent to this old palace named ‘Nava-Ratna Temple‘ (নব-রত্ন মন্দির). For the readers concern, it is to inform that there are very few ‘Nava-Ratna’ Temples in Bengal.

According to the stone inscription found in Nava-Ratna Temple inside of the Teota Palace, this palace was constructed during the years between 1702 to 1703. As per this account, the age of the building is more than 300 years. Hemshangkar Estate consists of the buildings located on the north side of the main buildings of Teota Zamindar Palace and establishments on the southern side of Zamindar Palace form Joyshangkar Estate. There is a hidden chamber called ‘black pit’ in the underground of the southern building. Four storied Nava-Ratna Temple stands in front of the south building. It is 75 feet high. There are four more temples near the south building. The Zaminder Palace in Teota is established on 7.38 acres of land. Some portions of the building have collapsed.

Features and Origins

The navaratna style of temple architecture (Sanskrit: नवरत्न, meaning “nine gems”) incorporates two main levels, each with four spired corner pavilions, and a central pavilion above, for a total of nine spires. The style arose in Bengal during the eighteenth century as an elaboration of the pancharatna (পঞ্চ রত্ন) style that had five pavilions (four at the corners and one above).


কিভাবে যাবেন

Referred to how to go Teota Zamindar Palace. click here

কিভাবে পৌঁছাবেন: মানিকগঞ্জ জেলা

মানিকগঞ্জ জেলার উত্তরে টাঙ্গাইল জেলা, পূর্বে ঢাকা জেলা, দক্ষিনে ফরিদপুর এবং ঢাকা জেলা এবং পশ্চিমে পদ্মা নদী, যমুনা নদী এবং পাবনা জেলা ও রাজবাড়ি জেলা অবস্থিত।

ঢাকার গাবতলি এবং গুলিস্তান থেকে বেশকিছু বাস যেমনঃ বিআরটিসি বাস সার্ভিস, শুভযাত্রা বাস সার্ভিস, পদ্মালাইন ইত্যাদি মানিকগঞ্জের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। এসব বাসে মানিকগঞ্জে যেতে ভাড়া লাগবে প্রায় ৪০/- টাকা।

মানিকগঞ্জে পৌছানোর জন্য নিম্নের লঞ্চগুলো ব্যবহার করতে পারেনঃ
আরিচা লঞ্চঘাট থেকে মানিকগঞ্জ হয়ে পাবনা অথবা কাজীরহাটে চলাচল করে। ভাড়াঃ ৩৫/- টাকা।
পাটুরিয়া থেকে রাজবাড়ি, ভাড়াঃ ৩০/- টাকা।

কোথায় থাকবেন

মানিকগঞ্জে থাকার জন্য হোটেল ও গেস্টহাউজগুলোর মধ্যে রয়েছেঃ
১। মানিকগঞ্জ রেসিডেনসিয়াল বোর্ডিং (বেসরকারি)
২০৮, শহীদ রফিক সড়ক, মানিকগঞ্জ, বাংলাদেশ;
এখানে ১৬টি সিঙ্গেল এবং ১০টি ডবল কক্ষ রয়েছে।
ফোনঃ ০৬৫১-৬১৩৫৯

২। নবীন রেসিডেনসিয়াল বোর্ডিং (বেসরকারি)
মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড (নবীন সিনেমা হলের পাশে), মানিকগঞ্জ, বাংলাদেশ;
এখানে ১৫টি সিঙ্গেল এবং ৭টি ডবল কক্ষ রয়েছে।
ফোনঃ ০১৭১২৬১১৪৫২

৩। জেলা পরিষদ বোর্ড হাউজ (সরকারি)
শহীদ মিরাজ তপন স্টেডিয়ামের পাশে, মানিকগঞ্জ, বাংলাদেশ;
ফোনঃ ০৬৫১-৬১৪৬৩

কি করবেন

Referred to things to do in Teota Zamindar Palace. click here

খাবার সুবিধা

There are restaurants nearby to check on at Aricha river ghat.Once upon a time Aricha was a busy place, but now a days there is nothing left. So may have to rely on Patuary Ghat for eating facilities.

মানচিত্র

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কথা বলুন

এই মুহূর্তে অনলাইনে না থাকায় আমরা দুঃখিত! কিন্তু আপনি আমাদের ই-মেইল পাঠাতে পারেন। আমরা ২৪ ঘন্টার মধ্যে আপনার প্রশ্নের উত্তর দেব।

আপনার প্রশ্ন বা সমস্যার সহযোগিতা করায় আমরা সর্বদা তৎপর!

ENTER ক্লিক করুন